কোন ধরনের ফেসিয়াল কখন জেনে নিন

সুন্দর ও সুস্থ ত্বকের জন্য প্রয়োজন ত্বকের সঠিক পরিচর্যা। আর ত্বক(Skin) পরিষ্কার রাখতে ফেসিয়ালের কোনো বিকল্প নেই। তবে আমরা অনেকেই জানি না কোন ফেসিয়ালটি আমাদের ত্বকের জন্য প্রয়োজন এবং এর সঠিক নিয়ম কী। আমাদের ত্বক(Skin) অনেক সংবেদনশীল। তাই না জেনে ফেসিয়াল(Facial) করা একদমই ঠিক না।


এ সম্পর্কে রেড বিউটি সেলুনের স্বত্বাধিকারী আফরোজা পারভিন বলেন, অনেকেরই ধারণা একবার Facial করেই ফর্সা হয়ে যাবে। আসলে ফেসিয়াল মানুষকে ফর্সা করে না, ত্বক সুস্থ ও পরিষ্কার রাখে। তবে কিছু Facial আছে যা ত্বককে পরিষ্কার করে আর কিছু Facial আছে যা ত্বকের সমস্যা(Skin problem) সমাধান করে।

জেনে নিন কোন ধরনের ত্বকে কেমন ফেসিয়াল করা প্রয়োজন-

গ্লোল্ড ফেসিয়াল
মূলত মধ্য বয়সী নারীদের জন্য এই Facial বেশ কার্যকর। এশিয়া মহাদেশের দেশগুলোতে নারীদের ত্বকে একটু হলুদ আভা থাকে। আর এই Facial এ ধরনের ত্বকে উজ্জ্বল ভাব আনে। ত্বকের পুরোনো লাবণ্য, উজ্জ্ব্বলতা ফিরিয়ে আনতে গোল্ড ফেসিয়ালের(Gold Facial) জুড়ি নেই।

পার্ল ফেসি‘য়াল
পার্ল ফেসিয়াল সব ধরনের ত্বকের জন্য প্রযোজ্য, তবে স্পর্শকাতর ত্বকে এই Facialবেশ কার্যকর। একটু বয়স বেশি হলে পার্ল ফেসিয়াল করা উচিত। পার্ল Facial করার পর ত্বকে অফহোয়াইট একটা আভা আসে এবং অনেক দিন দীর্ঘস্থায়ী হয়।

অ্যালোভেরা ফেসি‘য়াল
অতিরিক্ত শুষ্ক, রাফ বা সেনসেটিভ ত্বকের জন্য অ্যালোভেরা ফেসিয়াল(Aloe vera facial) অনেক উপকারী। এটি ব্রণের সমস্যা দূর করে, সানবার্ন(Sunburn) ভালো করে, সেই সঙ্গে বয়সের ছাপও লুকিয়ে ফেলে। ত্বকের পরিচর্যার জন্যও অ্যালোভেরা Facialবেশ কার্যকর।

অ্যান্টি-রিংকেল ফেসিয়াল
অতিরিক্ত শুষ্ক ত্বক, যাদের রিঙ্কেল পরার সম্ভাবনা খুব বেশি তারা এই Facial করবেন। বয়স বাড়ার সাথে সাথে চামড়া কুঁচকে যাওয়া, ভাঁজ পড়া বা ঝুলে যাওয়া ইত্যাদি নানা সমস্যা তৈরি হয়। অ্যান্টি-রিংকেল ফেসিয়াল(Anti-wrinkle facial) এসব সমস্যা সমাধান করে আপনার ত্বকে মসৃণতা ফিরিয়ে আনবে।

স্কিন টাইটেনিং ফেসি‘য়াল
ওজন(Weight) বাড়লে, গর্ভাবস্থা বা বয়সজনিত কারণে আমাদের মুখের চামড়ার স্থিতিস্থাপকতা নষ্ট হয়ে ত্বক(Skin) ঝুলে পড়ার সম্ভাবনা থাকে। বয়স বেড়ে যাওয়ার কারণে ত্বকের টানটান ভাব কমে যায়। এ ক্ষেত্রে স্কিন টাইটেনিং Facial খুবই উপকারী।

অ্যারোমা ফেসিয়াল
অ্যারোমা Facial বিয়ের কনেদের জন্য কার্যকরী। অর্থাৎ যাঁরা কিছু দিন পর বিয়ের কনে সাজতে যাচ্ছেন তাঁদের জন্য এই ফেসিয়াল উপযোগী এবং এই Facialসব ধরনের ত্বকের জন্যই উপযোগী।

পিম্পেল ফেসি‘য়াল
এই Facial তৈলাক্ত ত্বকের এবং ব্রনে আক্রান্তদের জন্য উপকারী। বড় ছোট সবাই এটা করতে পারেন। নিয়মিত মাসে দুবার এই ফেসিয়াল(Facial) করলে পিম্পেল আস্তে আস্তে কমে আসবে।

ফ্রুট ফেসি‘য়াল
বিভিন্ন ফলের Facial আমাদের ত্বকের জন্য খুবই উপকারী যাকে আমরা সাধারণত ফ্রুট ফেসিয়াল(Fruit Facial) বলে থাকি। এই ফেসিয়ালে যে মিক্সড ফ্রুট ক্রিম ব্যবহার করা হয় তা সব ধরনের ত্বকের জন্য ভালো। বিশেষ করে ফ্রুট Facial ত্বকের গভীর থেকে ময়লা পরিষ্কার করে। ত্বক(Skin) টান টান রাখে।

ফেসিয়ালের সঠিক সময়
আমরা অনেকেই মনে করে থাকি, ২৫-৩০ বছরের আগে ফেসিয়াল(Facial) করা ঠিক না। এ ধারণাটি সম্পূর্ণ ভুল। Facial আমাদের ত্বককে পরিষ্কার ও টান টান রাখে। তাই নিয়মিত Facial করলে বয়সজনিত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। তবে ত্বক(Skin) পরিষ্কার রাখতে যেকোনো বয়সেই Facial করানো যায়। কিন্তু ট্রিটমেন্ট বেইজ ফেসিয়ালগুলো একটু বয়স হলেই করানো ভালো। সাধারণত ট্র্রিটমেন্ট বেইজ ফেসিয়ালগুলো তিন-চার মাসের হিসেবে করানো হয়। আর ত্বক(Skin) পরিষ্কার রাখার Facial ১৫ দিন পরপর করলে ভালো হয়।

Post a Comment

0 Comments